গোয়ায় পার্নোর সঙ্গে মিমির পার্টি, অব্যাহত রাজনৈতিক জল্পনা

মিমি

গোয়ায় গিয়ে একসঙ্গে পার্টি করছেন মিমি চক্রবর্তী এবং পার্নো মিত্র। যেখানে সম্প্রতি ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিয়োর ধুনে নাচতে দেখা যায় মিমি চক্রবর্তী এবং পার্নো মিত্রকে। টলিউডের এই প্রথম সারির দুই অভিনেত্রীর ভিডিয়ো প্রকাশ্যে আসতেই তা ভাইরাল হয়ে যায়।

মিমি চক্রবর্তী এবং পার্নো মিত্রর ভিডিয়ো প্রকাশ্যে আসতেই, অনুরাগীরা তাঁদের ভালবাসা জানাতে শুরু করেন। পাশাপাশি মিমি এবং পার্নোর পার্টিতে তাঁদের সঙ্গে দর্শনা বণিকও যোগ দিতে চান বলে ইচ্ছা প্রকাশ করেন। টালিউডের এই দুই অভিনেত্রীর ভিডিয়ো প্রকাশ্যে আসতেই রাজনৈতিক জল্পনাও শুরু হয় নতুন করে।

পার্নো কি এবার তৃণমূল শিবিরে আসতে চলেছেন? এমন প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন অনেকে। তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ মিমি চক্রবর্তীর সঙ্গে পার্নো নেহাত বন্ধুত্বের জেরেই কি একসঙ্গে ছুটি কাটাচ্ছেন না সবুজ শিবিরে নিজের অস্তিত্ব জানান দিতে চাইছেন এই অভিনেত্রী? এমন প্রশ্ন উঠছে।

মিমি চক্রবর্তী

সম্প্রতি যশ থেকে শুরু করে হিরণ কিংবা রুদ্রনীল, টলি পাড়়ার একের পর এক মুখ হয় নতুন শিবিরে যোগ দিচ্ছেন না হলে শিবির বদল করছেন। দলে থেকে কাজ করতে পারছেন না বলে সম্প্রতি মন্তব্য করেন হিরণ। অন্যদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আশীর্বাদ নিয়ে বিজেপিতে কাজ করতে চান বলে মন্তব্য করেন যশ দাশগুপ্ত।

অন্যদিকে বিজেপিতে যোগ দেওয়ায়, রুদ্রনীল ঘোষকে নিয়ে একের পর এক কটাক্ষ শুরু করেন নেট জনতার একাংশ। যার উত্তরে সমালোচকদের পালটা জবাব দেন অভিনেতা। তিনি বলেন, নেতা, মন্ত্রীরা যাদি অহর্নিশ দল বদল করতে পারেন, তাহলে তাঁর ক্ষেত্রে অসুবিধা কোথায়? সবকিছু মিলিয়ে ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে দল বদলের জেরে তপ্ত হয়ে উঠতে শুরু করেছে বাংলার রাজনীতি।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*